মূস্তালাহুল হাদিস مصطلح الحديث কি,এর উদ্দেশ্য,উৎপত্তি,ক্রমবিকাশ আলোচ্য বিষয়

         

উপস্থাপনাঃ

বিশ্ব মানবতার মুক্তিদূত মহানবী হযরত মুহাম্মদ এর মুখ থেকে বে হওয়া বাণীই হচ্ছে হাদিস। এটা শরীয়তের দ্বিতীয় উৎস ও বিশ্বমানবতার জীবন চলার পথেয়।এ হাদীস গ্রহণ কিংবা বর্জন প্রশ্নে হাদিসের সনদ ও মতনের যেসব বিষয় গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করার দাবি রাখে, সেসব বিষয়ে জানার জন্য মূস্তালাহুল হাদিস مصطلح الحديث সম্পর্কে জ্ঞানলাভ করা একান্ত অপরিহার্য।অন্যথা হাদিসের বিশুদ্ধতা সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা লাভ করা সম্ভব হবেনা। নিম্নে মূস্তালাহুল হাদিস مصطلح الحديث এর উদ্দেশ্য, উৎপত্তি, ক্রমবিকাশ, আলোচ্য বিষয় সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত বিবরণ পেশ করা।

আভিধানিক অর্থ(معنى مصطلح الحديث لغة)

مصطلح الحديث শব্দটি مركب তথা যৌগিক শব্দ। দুটি শব্দের অর্থ পেশ করা হলো । مصطلح শব্দের অর্থ হলো
* পরিভাষা,
* ঐক্যমত।
الحديث অর্থ হলো-
* কথা,
* বানী,
* উপদেশ ইতাদি।
مصطلح الحديث শব্দের অর্থ হলো
* হাদিসের পরিভাষা।

পারিভাষিক অর্থ( معنى مصطلح الحديث اصطلاحا)

مصطلح الحديث সম্পর্কে কয়েকটি অভিমত পাওয়া যায়।যেমন-
() তাইসিরু মুসতলাহূল হাদিস গ্রন্থাগার বলেন
هو علم اصول وقواعد يعرف بها احوال السند والمتن من حيث القبول والرد
মুস্তালাহুল হাদীস এমন কতিপয় নিয়ম পদ্ধতির জ্ঞান কে বলা হয়, যা দ্বারা হাদিস কে গ্রহণ ও বর্জনের বিষয়ে হাদীসের সনদ ও মতন এর যাবতীয় অবস্থা সম্পর্কে জানা যায়।
() শায়খ ইযযুদ্দিন ইবনে জামায়াজ রহ বলেন-
هو علم بقوانين يعرف بها احوالا لسند و المتن.
মুস্তালাহুল হাদীস এমন কতগুলো নিয়োগ পদ্ধতির জ্ঞান কে বলা হয়, যার দ্বারা হাদীসের সনদ ও মতন এর অবস্থা সম্পর্কে অবগতি লাভ করা যায়।
() হাফেজ ইবনে হাজার আসকালানী বলেন-

هو معرفه القواعد المعرفه بحال الراوي والمروي

() মুস্তালাহুল হাদীস হচ্ছে এমন কতিপয় নিয়মাবলী জানার না যা হাদীসের বর্ণনাকারীর বর্ণিত হাদিসের অবস্থা সম্পর্কে অবহিত করে।
() নুখবাতুল ফিকার গ্রন্থকার বলেন-هو علم يبحث فيه عن صحه الحديث وضعفيه يعمل به او يترك من حيث صفات الرجال وصيغ الاداء
() হায়াতুল মুসান্নিফীন গ্রন্থে বলা হয়েছে-هو علم باصول يعرف بها احوال حديث رسول الله صلّى اللَّه عليه وسلم من حيث الصحه والضعف والقبول والرد

আলোচ্য বিষয়ঃ

মুস্তালাহুল হাদীস এর আলোচ্য বিষয় হচ্ছে-

() ডক্টর মাহমুদ আত তহহান বলেন
موضوع السند والمتن من حيث القبول والرد

() মুস্তালাহুল হাদীস এর আলোচ্য বিষয় হচ্ছে গ্রহণ এবং বর্জনের দিক থেকে হাদীসের সনদ ও মতন নিয়ে আলোচনা করা।

() ইবনে জামাযাহ রহ বলেন
-موضوع عن السند والمتن

() হাদীসের সনদ ও মতন হচ্ছে এর আলোচ্য বিষয়।
() কেউ কেউ বলেন – এর আলোচ্য বিষয় হচ্ছে রেওয়ায়াত ও দেরায়াত।
মোটকথাঃ মুস্তালাহুল হাদীস এর আলোচ্য বিষয় দু’টি। যথা-
* হাদীসের সনদ
* হাদিসের মতন,


মুস্তালাহুল হাদিসে উদেশ্যঃ

মস্তালাহুল হাদিসে উদেশ্য হলো-

() আল্লামা ইযযুদ্দিন এর মতে
غرضه معرفة الصحيح من غيره

() মুস্তালাহুল হাদীস এর উদ্দেশ্য হচ্ছে গায়রে সহি ও শুদ্ধ হাদিস থেকে সহি তথা শুদ্ধ হাদিস সম্পর্কে অবগত লাভ করা।

()আল্লামা কিরমানী রহ বলেন
غرضه هو والفوز بسعادة الدارين

() উদেশ্য হলো ইহকাল ও পরকালের সাফল্য অর্জন করা।
আবার কেউ কেউ বলেনঃ মুস্তালাহুল হাদীস এর লক্ষ্য হলো দু’টি। যথা-
* সহীহ হাদীসকে যয়ীফ হাদিস থেকে পৃথক করা
* হাদিসের পারস্পরিক স্তর জানা।

উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশঃ

মুস্তালাহুল হাদীস এর উৎপত্তি ও উদ্ভাবনের প্রয়োজনীয়তা কোরআনুল কারীম থেকে গ্রহণ করা হয়েছে। যেমন কুরআনে এসেছে-يٰاَيهَاالذين اٰمنو اِنْ جَاءَكُمْ فَاسِقٌ بِنَبَاٍُ فَتَبَيَّنُوْا
হাদিসে এসেছে-نضر الله امرا سمع منا شيئا فبلغه كما سمعه فرب مبلغ اوعى من سامع
উল্লিখিত আয়াতে কারীমা ও হাদীসের উপর বিশ্লেষণপূর্বক সাহাবায়ে কেরাম অন্যের কাছ থেকে হাদিসের সংকলন ও গ্রহণ করার ক্ষেত্রে বাছাই প্রক্রিয়া শুরু করেন। তবে যেহেতু সাহাবীগণের সমসাময়িক যুগের বর্ণনাকারীগণের অধিকাংশই عادلضابط ছিলেন এবং হাদীসের সনদ মতন ও এতৎসংক্রান্ত বিশুদ্ধতা ও ত্রুটি সম্পর্কে তাদের অবগতি ছিল।কাজেই হাদিসের যাচাই বাছাই প্রক্রিয়া নির্ধারণে মুস্তালাহুল হাদীস এর উদ্ভাবনী তেমন কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি তবে প্রচেষ্টা তখন থেকেই শুরু হয়েছে।
কিন্তু পরবর্তী পর্যায়ে ইলমে হাদীসের ব্যাপক প্রচার ও প্রসারের কারণে হাদিসের বিশুদ্ধতা ও দুর্বলতা নিম্নপণের যখন সমস্যার উদ্রেক হয়, তখন হাদীস বর্ণনার হাকিকত, শর্তাবলী, প্রকারভেদ, বর্ণনা কারীগনের অবস্থা এবং তৎসংশ্লিষ্ট শর্তাবলী সম্পর্কে জ্ঞান লাভের উদ্দেশ্যে সংক্রান্ত বিষয়ে পুস্তক প্রণয়নের আবশ্যকতা দেখা দেয়। এ ব্যাপারে অনেক প্রখ্যাত আলেম ও হাদিস বিশারদগণ এগিয়ে আসেন।যেমন-


হিজরী চতুর্থ শতাব্দীতে মুস্তালাহুল হাদীস সংকলন ও বিকাশঃ

হাদিসের বিশুদ্ধতা ও দুর্বলতার নিরূপণ করে হাদিস সম্পর্কে সুস্পষ্ট বর্ণনা লাভ করার জন্য হিজরী চতুর্থ শতাব্দীতে তৎকালীন সময়ের প্রখ্যাত আলেম ও হাদীস বিশারদ কাজী আবু মুহাম্মদ হাছান ইবনে আবদুর রহমান ইবনে খাল্লাদ আর রামাহুরমুযু المحدث الفاصل بين الراوي والواعي নামক একটি গ্রন্থ প্রণয়ন করেন।


হিজরী পঞ্চম শতাব্দীতে মুস্তালাহুল হাদীস এর বিকাশঃ

معرفة الحديث গ্রন্থে যেসব বিষয় বাদ পড়েছে সেসব বিষয়ের উল্লেখসহ হিজরী পঞ্চম শতাব্দীতে আবু নুয়াইমআহমাদ ইবনে আব্দুল্লাহ আল আসবাহানী মুস্তালাহুল হাদিসের বিষয়ে المستخرج على معرفه علوم الحديث নামে একটি গ্রন্থ প্রণয়ন করেন।

হিজরী ষষ্ঠ শতাব্দীতে মুস্তালাহুল হাদীস এর বিকাশঃ

আযী আয়ায ইবনে মুসা হিজরী ষষ্ঠ শতাব্দীতে একটু ভিন্ন আঙ্গীকে الا الماع الى معرفه اصول الرواية تقييد السماء নামক একটি গ্রন্থ প্রণয়ন করেন। এটিতে মুস্তালাহুল হাদিসের সকল বিষয় শামিল করা হয়নি। এটি ছিলো كيفيه التحمل والاداء সংক্রান্ত একটি সংক্ষিপ্ত গ্রন্থ।
হিজরী সপ্তম শতাব্দীতে মুস্তালাহুল হাদীস এর বিকাশঃ সপ্তম শতাব্দীতে প্রখ্যাত হাদীস বিশারদ ইবনুস সালাহ উলুমুল হাদিস নামক মুস্তালাহুল হাদীস বিষয়ে একটি আধুনিক গ্রন্থ রচনা করেন। যা تدريب الراوي في شرح تقريب النووى নামে প্রসিদ্ধি।


হিজরী নবন শতাব্দীতে মুস্তালাহুল হাদীস এর বিকাশঃ

নবম শতাব্দীতে আল্লামা জালাল উদ্দিন সুয়ূতী রহ تدريب الراوي في شرح تقريب النووى নামক মুস্তালাহুল হাদীস এর উপর আধুনিক অঙ্গীকে গ্রন্থ রচনা করেন। এরই ধারাবাহিকতায় আল্লামা হাফেয ইবনে হাজার আসকালানী রহ نخبة الفكر في مصطلح اهل الاثر নামক উসুলে হাদিস বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ রচনা করেন। এটি সংক্ষিপ্ত হলেও খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এখানে স্থান পেয়েছে এবং গ্রন্থটি তারতীব অনুযায়ী লেখা হয়েছে।

হিজরী একাদশ শতাব্দীতে মুস্তালাহুল হাদীসের বিকাশঃ

হিজরী একাদশ শতাব্দীতে ওমর ইবনে মুহাম্মদ আলবা কুনি রহ المنظومهة البيقونيه নামক মূস্তালাহুল হাদিস এর উপর একটি গ্রন্থ প্রণয়ন করেন। যা খুবই উপকারী গ্রন্থ হিসেবে তৎকালীন সময়ে প্রসিদ্ধি লাভ করেছে।
হিজরী চতুর্দশ শতাব্দীতে মুস্তালাহুল হাদীস এর বিকাশঃ হিজরী চতুর্দশ শতাব্দীতে মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন কাসেমী রহ قوارد التحريث নামে মুস্তালাহুল হাদীস এর উপর সর্বাধুনিক একটি গ্রন্থ প্রণয়ন।

উপসংহারঃ

শরীয়তের দ্বিতীয় উৎস علم الحديثه সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা লাভ করার জন্য মূস্তালাহুল হাদিস مصطلح الحديث এর গুরুত্ব অপরিসীম। সুতরাং হাদিসের বিশুদ্ধতা ও দুর্বলতা সম্পর্কে জানতে হবে। মুস্তালাহুল হাদীসের জ্ঞানই হাদীস সংক্রান্ত জ্ঞানকে পরিপক্ব, নিরেট ও সুন্দর করে তোলে।

You Might Also Like